খাগড়াছড়ি জেলা নিয়ে সাধারণ জ্ঞান প্রশ্ন-উত্তর।চাকরির প্রস্তুতি

আসসালামু ওয়ালাইকুম, সবাই কেমন আছেন? আশাকরি ভালো থাকার চেস্টায় আছেন। আজকে খাগড়াছড়ি জেলা নিয়ে  যে সকল প্রশ্ন প্রায় সব ধরনের প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষায় আসে,সেই প্রশ্ন এবং উত্তর থাকবে এই পোস্টে। আশাকরি সকলে উপকৃত হবেন।

০১। খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিষ্ঠা লাভ করে ৭ নভেম্বর ১৯৮৩।

০২।খাগড়াছড়ি জেলার মোট আয়তন – ২,৭৪৯.১৬ বর্গকিলোমিটার।

০৩।আয়তনে খাগড়াছড়ি বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলার মধ্যে ২১ তম।

০৪।খাগড়াছড়ি জেলার মোট জনসংখ্যা ৬,৩৮,৯৬৭ জন।

০৫।জনসংখ্যায় খাগড়াছড়ি বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলার মধ্যে ৬২ তম।

০৬।খাগড়াছড়ি জেলায় প্রতি বর্গকিলোমিটারে লোক বসবাস করে ২২৩ জম( আদমশুমারী ২০১১)

৭।খাগড়াছড়ি জেলায় উপজেলা মোট- ০৯ টি।

* খাগড়াছড়ি সদর

*মহালছড়ি

*মানিকছড়ি

*পানছড়ি

*লক্ষীছড়ি

*দীঘিনালা

*মাটিরাঙ্গা

* রামগড়

Read  বিখ্যাত পঙক্তি ও বক্তা

* শুইমারা।

০৮।খাগড়াছড়ি জেলার সর্ববৃহৎ উপজেলা দীঘিনালা – ৬৯৪ বর্গকিলোমিটার।

০৯।খাগড়াছড়ি জেলার ক্ষুদ্রতম উপজেলা মানিকছড়ি- ১৬৮ বর্গকিলোমিটার।

১০।খাগড়াছড়ি জেলার পৌরসভা -৩টি ইউনিয়ন -৩৮ টি গ্রাম- ১,৭০২ টি।

১১।খাগড়াছড়ি জেলায় সাক্ষ্যরতার হার- ৪৬.১ – সাক্ষরতার আন্দোলন নাম- বর্নিল।

১২।খাগড়াছড়ি জেলার উল্লেখযোগ্য নদ- নদী –

  • চেঙ্গী ও মাইনি।

১৩।খাগড়াছড়ি জেলার উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি-

  •  মহারানী নিহারদেবী
  • ডা. নীরুকুমার চাকমা,
  • আ. ওয়াদুদ ভূঞা।

১৪।খাগড়াছড়ি জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান –

  •  আলুটিলা পর্যটন কেন্দ্র
  • রিছাং ঝর্না
  • পানছড়ি শান্তিপুর অরণ্য কুটির।

১৫।মুক্তিযুদ্ধের সময় খাগড়াছড়ি জেলা ছিল ১ নং সেক্টরের অধীনে।

১৬।খাগড়াছড়ি জেলায় সংসদীয় আসন ১ টি, আসন সংখ্যা ২৯৮।

উপরের দেয়া প্রশ্নগুলোর উত্তর যদি আপনার জানা থাকে, তাহলে খাগড়াছড়ি জেলা নিয়ে   আর কোনো প্রশ্ন পড়া লাগবে না আপনার। যে কোন চাকরীর পরীক্ষায় এই থেকেই ঘুরেফিরে আশে।ধন্যবাদ সকলকে।

Read  চাকরির পরীক্ষার প্রস্তুতি যেভাবে নিবেন।

Leave a Comment

You cannot copy content of this page